Deshprothikhon-adv

আমেরিকার বাজারে পোশাক খাতের বাংলাদেশের দাপট

0
Share on Facebook82Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

garmentsশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: আমেরিকার বাজারে চীনের পোশাক রপ্তানি দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। সারাবিশ্বে পোশাক রপ্তানি চীনের সব্বোর্চ অবস্থান থাকলে হঠাৎ তা ধ্বস নামেছে। চীনের ব্যবসায়িক বাজার বাংলাদেশের অবস্থান শীর্ষে আসার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

গত বছর বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার পোশাক আমদানীর মুল্য ছিল ৬ দশমিত ৩৪ শতাংশ। এখন তা বৃদ্ধি পেয়েঠে ১৩.০৪ শতাংশ। চলতি বছরে প্রখম আট মাসে জানুয়ারী-আগষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে ৬.৫৭ শতাংশ। সুত্রে বার্ষিক বানিজ্য প্রতিবেদন বিভাগ, আমেরিকা।

চীন পোশাক রপ্তানি আমেরিকার বাজার দখল ছিল দীর্ঘ সময় ধরে। তবে নিন্মলিখিত চারটি সব্বোর্চ অবস্থানের দেশগুলোর নিন্মরুপ, ভিয়েটনাম, বাংলাদেশ, ইন্দেনিয়া, ভারত। আমেরিকার বাজার চীনসহ অনেক দেশের পোশাক রপ্তানি হ্রাস পাচ্ছে।

কিন্ত ঐসব দেশের তুলনায় বাংলাদেশের রপ্তানি দিন দিন বাড়ছে। ফারুক হোসেন নামে এক বিশ্লেষক বলেন, আমি মনে করি সামনের বছরগুলোতে বাংলাদেশ পোশাক রাপ্তানিতে অনেক দুর এগিয়ে যাবে।

সূত্রমতে, ইউরোপ-আমেরিকার পোশাক ক্রেতাদের জোট এ্যাকর্ড ও এ্যালায়েন্সের তত্ত্বাবধানে দেশের পোশাক কারখানার অগ্নিব্যবস্থাপনা, ভবনের কাঠামো ও বৈদ্যুতিক সংস্কারের কাজ চলমান রয়েছে। নিরাপদ কর্মপরিবেশ এবং শ্রম অধিকার নিশ্চিতে পোশাক খাতের ওপর এই দুই জোটের বরাবর চাপ রয়েছে। পোশাকের সঠিক দাম নির্ধারণের বিষয়টি নিয়েও ক্রেতাদেশগুলোর সঙ্গে উদ্যোক্তাদের দরকষাকষি চলছে।

এতসব চ্যালেঞ্জ থাকা সত্ত্বেও পোশাক রপ্তানিতে স্বস্তি এনে দিয়েছে। ইউরোপ-আমেরিকায় উৎসবের পোশাক তৈরি হয়েছে বাংলাদেশে। তৈরিকৃত এসব উন্নতমানের পোশাক এখন ইউরোপ-আমেরিকার বিভিন্ন দেশে পাঠানো হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পোশাক রফতানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতি মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমাদের দেশে পোশাক রফতানি দিন দিন বেড়েছে। এবার ১৯-২০ শতাংশ রফতানি প্রবৃদ্ধি হবে। ইতোমধ্যে তৈরিকৃত পোশাকের শিপমেন্ট শুরু হয়েছে।

 

Comments are closed.