Deshprothikhon-adv

৩০ ব্যাংকের মধ্যে ২০ ব্যাংকের মুনাফা বেড়েছে

0

BANK LAGOফয়সাল মেহেদী, শেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে ২০টির আয় বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত ৯ মাসের অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় এ তথ্য পাওয়া গেছে। দেখা গেছে, এ খাতের মোট ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে তৃতীয় প্রান্তিক (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর’ ১৬) শেষে ৬৬.৬৭ শতাংশ বা ২০টি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে। অন্যদিকে আয় কমেছে ৩৩.৩৩ শতাংশ বা ১০টি ব্যাংকের।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সব সময়ই বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের শীর্ষে থাকে ব্যাংক খাত। তবে সম্প্রতি সময়ের ব্যাংকিং খাতে ঋণ কেলেঙ্কারিসহ নানা ধরনের অনিয়ম বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ায় এবং পুঁজিবাজারের অনেক বিনিয়োগকারী এ খাত থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়।

ৎঅবশ্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তৎপরতায় এ খাতের অনিয়ম কমতে শুরু করেছে। এদিকে বাজারের তালিকাভুক্ত সিংহভাগ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে। এতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়বে এবং বছর শেষে ব্যাংকগুলো ভালো ডিভিডেন্ড ঘোষণা করবে এমন প্রত্যাশা বাজার সংশ্লিষ্টদের।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, যে ২০ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস বেড়েছে তা দৈনিক দেশ প্রতিক্ষণের পাঠকদের জন্য আজ তুলে ধরা হলো- ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিডেট : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৩.১৭ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.৮১ টাকা।

অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৩৬ টাকা। এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২৩.০১ টাকা,

যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৮.৫৮ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২১.৯১ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২০.৬৯ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৩.২৯ টাকা। আলোচ্য বছরের জন্য মোট ১৫ শতাংশ (৭ শতাংশ ক্যাশ ও ৮ শতাংশ স্টক) ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ।

শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.২৩ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.১৪ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.০৯ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৬.১৮ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬.১১ টাকা (ঋণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬.৯৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৬.৩৯ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৭৯ টাকা। ওই বছরের জন্য ১৩ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ।

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.০৪ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৬৪ টাকা।

সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৪০ টাকা। এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.২২ টাকা (ঋণাত্বক), যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.২১ টাকা (ঋণাত্বক)।

এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৭.১৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৬.১৯ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.৯১ টাকা। আলোচ্য বছরের জন্য মোট ২০ শতাংশ (১৫ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক) ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ।

এবি ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারী-সেপ্টেম্বর’ ১৬) শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৮৪ টাকা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.৪০ টাকা। অর্থাৎ ৯ মাসের হিসাবে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৪৪ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪৪.৪৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭.৭০ টাকা। ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৫.৯৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩১.৫৭ টাকা।

সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এবি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.৪২ টাকা এবং বছর শেষে ১২.৫০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড দিয়েছিল কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

আল-আরাফা ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) আল-আরাফা ইসলামি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৭১ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.০৯ টাকা। অর্থাৎ ৯ মাসের হিসাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৬২ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৬.১০ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬.১২ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৮.৩৯ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৭.৬২ টাকা।

সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.৩৬ টাকা। বছর শেষে মোট ১৫ শতাংশ (১০ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক) ডিভিডেন্ড দিয়েছিল কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

ব্রাক ব্যাংক লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) ব্রাক ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৩.৬২ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.৩০ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ১.৩২ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১৫.১৪ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.৬৬ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৯.৬১ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৭.৪৯ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) ব্রাক ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৩.২৮ টাকা। বছর শেষে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ২৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

সিটি ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) সিটি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৭৮ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.৬৩ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.১৫ টাকা। আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৮৩ টাকা

(ঋণাত্বক); যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৮.৮০ টাকা (ধণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৬.১৮ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৮.০৭ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) সিটি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৪.১০ টাকা। ওই বছর কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ২২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) ইস্টার্ন ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.০৩ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.৯৪ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.০৯ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৭.১০ টাকা (ঋণাত্বক); যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৬৯ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৮.৮০ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩১.৫১ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৩.৭৩ টাকা। বছর শেষে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ মোট ৩৫ শতাংশ (২০ শতাংশ ক্যাশ ও ১৫ শতাংশ স্টক) ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

এক্সপোর্ট ইমপোর্ট (এক্সিম) ব্যাংক অব বাংলাদেশ লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) এক্সিম ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৯৪ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৩১ টাকা। সে হিসাবে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৬৩ টাকা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের ৯ মাসে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৮.২১ টাকা (ঋণাত্বক); যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.৮৫ টাকা (ঋণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৭.৫৩ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৬.৫৮ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৪৮ টাকা। আলোচ্য বছর শেষে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৫৬ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৫৯ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৯৭ টাকা।

এদিকে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৭.৫০ টাকা (ঋণাত্বক); যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১২.০৪ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৫.৩৪ টাকা; যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৩.৬২ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.২৬ টাকা। বছর শেষে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

আইএফআসি ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে আইএফআসি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ২.১০ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.৭২ টাকা। সে হিসাবে এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৩৮ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৯.৪১ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৮ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩.৯৮ টাকা, যা ৩১ ডিসেম্বর’ ১৫ পর্যন্ত ছিল ২১.৯৪ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) আইএফআইসি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.১০ টাকা। ওইবছর কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ১২ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ২.৬১ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.৪৪ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.১৭ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.২৩ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৪.৪৭ টাকা। এদিকে ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩০.৭৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩০.৫৫ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৯৬ টাকা। আলোচ্য বছরে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ২০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

যমুনা ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে যমুনা ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.২৪ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.১৩ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.১১ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৯.৯৩ টাকা (ঋণাত্বক), যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪.৯০ টাকা (ধণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৪.২৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৩.৭১ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) যমুনা ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.৬৮ টাকা। আলোচ্য বছরে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ১৯.৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.৭৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৬৪ টাকা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ১.১২ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৬.৩৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬.৯৪ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২১.৬০ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৯.২৪ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৮৯ টাকা। আলোচ্য বছরে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ২.১৮ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২.০৬ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.১২ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১১.০৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬.৩১ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২০.৯৬ টাকা, যা ৩১ ডিসেম্বর’ ১৫ পর্যন্ত ছিল ২০.১৫ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৩.৭০ টাকা। ওই বছর প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদ ২০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ন্যাশনাল ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.২৪ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৭৮ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.৪৬ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৩১ টাকা (ঋণাত্বক), যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬.২৭ টাকা (ধণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬.৮১ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৭.৯০ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.২৬ টাকা। বছর শেষে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ১৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিডেট : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ০.৯৭ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৯৪ টাকা।

অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.০৩ টাকা। আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.৫৪ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৯৩ টাকা। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৭.৩৮ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৭.৩৬ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৫৭ টাকা। ওই বছর ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ১২.৭৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ওয়ান ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১.৯৯ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.৭৩ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.২৬ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৯.৬৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১১.৮৪ টাকা। এদিকে ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৭.০৮ টাকা, যা ৩১ ডিসেম্বর’ ১৫ পর্যন্ত ছিল ১৬.৪০ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ৩.১৭ টাকা। আলোচ্য বছরের জন্য ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ মোট ২৫ শতাংশ (১২.৫০ শতাংশ ক্যাশ ও ১২.৫০ শতাংশ স্টক) ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে প্রিমিয়ার ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ০.৫০ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৪১ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.০৯ টাকা।

আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১.৩৬ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১.২১ টাকা। এদিকে ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৫.৮৩ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৫.৫৮ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) প্রিমিয়ার ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ১.৫৫ টাকা। ওই বছর ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ১০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

স্টান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড : চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-সেপ্টম্বর’ ১৬) অনীরিক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে স্টান্ডার্ড ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ০.৭৪ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ০.৭৩ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০.০১ টাকা।

এদিকে আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.২০ টাকা (ঋণাত্বক), যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪.৫৭ টাকা (ঋণাত্বক)। এছাড়া ৩০ সেপ্টেম্বর’ ১৬ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬.০১ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৫.৪৪ টাকা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩১ ডিসেম্বর’ ১৫) এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছিল ২.৪৩ টাকা। আলোচ্য বছরের জন্য ১৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ। সুত্র: দেশ প্রতিক্ষণ

Comments are closed.