Deshprothikhon-adv

বহুজাতিক ও যৌথ মূলধনী কোম্পানির মুনাফা কমেছে

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

forgainমো: সাজিদ খান, শেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা:  পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বহুজাতিক কোম্পানি এবং যৌথ মূলধনী কোম্পানির আগের বছরের তুলনায় গত বছর মুনাফা কমেছে। ২০১৫ অর্থবছরে মুনাফার প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১.৪৬ শতাংশ। ২০১৪ অর্থবছরে এসব কোম্পানির সমন্বিত মুনাফায় প্রবৃদ্ধি ছিল ২২.৬৩ শতাংশ। সেই হিসেবে ২০১৫ অর্থবছরে কোম্পানিগুলোর মুনাফায় প্রবৃদ্ধি কমেছে।

জানা যায়, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ১৬টি বিদেশী মালিকানাধীন বহুজাতিক ও যৌথ মূলধনী কোম্পানি রয়েছে। ২০১৫ অর্থবছরে এ ১৬ কোম্পানির সমন্বিত মুনাফা আগের বছর ২০১৪ সালের তুলনায় ১.৪৬ শতাংশ অর্থাৎ ৫৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা বেড়েছে। অথচ ২০১৪ অর্থবছরে সমন্বিত মুনাফা ২০১৩ হিসাব বছরের তুলনায় ২২.৬৩ শতাংশ বা ৭০৩ কোটি ১৩ লাখ টাকা বেড়েছিল।

সর্বশেষ তিন বছরে অর্থাৎ ২০১৫, ২০১৪ ও ২০১৩ অর্থবছরে এ ১৬ কোম্পানির সমন্বিত মুনাফা হয়েছে যথাক্রমে- ৩ হাজার ৮৬৫ কোটি ২৪ লাখ টাকা, ৩ হাজার ৮০৯ কোটি ৪৭ লাখ এবং ৩ হাজার ১০৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা হয়েছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১৬টি বহুজাতিক ও যৌথ মূলধনী কোম্পানিগুলো হলো : গ্রামীণফোন, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, ডাচ-বাংলা ব্যাংক, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, বার্জার পেইন্টস, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, ম্যারিকো বাংলাদেশ, বাটা স্যু, গ্ল্যাক্সো স্মিথক্লাইন, লিন্ডে বিডি, লঙ্কাবাংলা ফিন্যান্স, সিঙ্গার বাংলাদেশ, রেকিট বেনকিজার, ফু-ওয়াং ফুড, ফু-ওয়াং সিরামিক এবং সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ। তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে ছয় কোম্পানির মুনাফা আগের বছরের তুলনায় কমেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মুনাফা কমেছে লাফার্জ সুরমা সিমেন্টের।

২০১৫ অর্থবছরে কোম্পানির মুনাফা হয়েছে ২২৮ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। যা এর আগের বছর অর্থাৎ ২০১৪ সালে ছিল ২৮১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ কোম্পানিটির মুনাফা ১৮.৮ শতাংশ কমেছে। এছাড়া ২০১৫ অর্থবছরে ফু-ওয়াং সিরামিক, লঙ্কাবাংলা ফিন্যান্স, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, ম্যারিকো বাংলাদেশ এবং গ্রামীণফোনের মুনাফা কমেছে।
২০১৫ অর্থবছরে আয় সবচেয়ে বেশি বেড়েছে ফু-ওয়াং ফুডের। ৩০ জুন, ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটির আয় হয়েছে ১১ কোটি টাকা। আগের বছর যার অর্থাৎ ২০১৪ অর্থবছরে যার পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকা।

এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির মুনাফা ৮৪.৫৬ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া ২০১৫ অর্থবছরে রেকিট বেনকিজার, ডাচ-বাংলা ব্যাংক, বার্জার পেইন্টস, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, বাটা স্যু, লিন্ডে বাংলাদেশ, সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ, সিঙ্গার বিডি এবং গ্ল্যাক্সো স্মিথক্লাইনের মুনাফা আগের বছরের তুলনায় বেড়েছে।

এদিকে বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর মধ্যে ২০১৫ অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি মুনাফা করেছে গ্রামীণফোন। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটি মুনাফা করেছে এক হাজার ৯৭০ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ কোম্পানিটির মুনাফা আগের বছরের তুলনায় ০.৪৮ শতাংশ বা ৯ কোটি ৬৩ লাখ টাকা কমেছে।

২০১৪ অর্থবছরে কোম্পানিটির মুনাফা আগের বছরের তুলনায় ৩৪.৭০ শতাংশ বা ৫১০ কোটি ১৮ লাখ টাকা বেড়ে হয়েছিল এক হাজার ৯৮০ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর মধ্যে গ্রামীণফোন, ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো, ডাচ-বাংলা ব্যাংক, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, বার্জার পেইন্টস, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট এবং ম্যারিকো বাংলাদেশ ১০০ কোটি টাকার উপরে মুনাফা করছে।

Comments are closed.