Deshprothikhon-adv

স্বল্প মূলধনী কোম্পানীর শেয়ার নিয়ে কারসাজির অভিযোগ!

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

dse-up-dowenশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারে সপ্তাহ জুড়ে বাজার পরিস্থিতি স্থিতিশীলতার আভাসে এ সপ্তাহে সুচক ও লেনদেন বাড়ছে। দীর্ঘ দিন পর পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতার আভাসে পুরানো বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি নতুন বিনিয়োগকারীদের আনাগোনা বাড়ছে। তবে বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে কারসাজি চক্র থেমে নেই। ফের জালিয়াত চক্র সক্রিয় হয়ে উঠছে।

কয়েক লাখ বিনিয়োগকারীকে পথে বসিয়েও একইভাবে শেয়ার কারসাজি করে চলছে তারা। প্রতিদিন কারসাজির তালিকায় যোগ হচ্ছে নতুন নতুন কোম্পানির নাম। অভিযোগ রয়েছে, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও বিএসইসির কিছু কর্মকর্তা যোগসাজশ করে শেয়ার কারসাজি করছেন। এবার তারা বেছে নিয়েছেন স্বল্প মূলধনী প্রতিষ্ঠানগুলোকে। অর্থাৎ সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পথে বসানোর আরেক দফা আয়োজন চলছে পুঁজিবাজারে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, গত দুই মাসে বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ার নিয়ে ব্যাপক কারসাজির ঘটনা ঘটে। এ জন্য বিএসইসি-সংশ্লিষ্ট কোম্পানির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় বেপরোয়া হয়ে উঠছেন কারসাজিকারী চক্রের সদস্যরা। গত দুই সপ্তাহ ধরে কারসাজির তালিকায় শীর্ষে উঠে আসে রেনউইক যজ্ঞেশ্বর নামে একটি প্রতিষ্ঠানের নাম।

এদিকে পুঁজিবাজার কেন পথে হাটছে, এ প্রশ্ন খোদ বিনিয়োগকারীদের মুখে মুখে। ফের পেছনের দিকেই হাঁটছে দেশের শেয়ারবাজার। স্থিতিশীলতার এই চেষ্টায় যখনই সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আশায় বুক বাঁধেন, তখনই কারসাজির হোতারা আবারো সক্রিয় হয়ে ওঠে। কারসাজির বিরুদ্ধে বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোন ব্যবস্থা নিতে পারছে না। এবারও তার ব্যতিক্রম কিছু নয় বলে ধারণা করছেন বাজার-বিশেষজ্ঞরা।

তবে বর্তমান বাজার পরিস্থিতি এ স্থিতিশীলতার আভাসে বিনিয়োগকারীদের মাঝে বাজার নিয়ে পুরোপুরি আস্থা ফিরে আসবে। বিনিয়োগকারীরা তাদের হারানো পুঁজি কিছুটা হলেও ফিরে পাবে। এমন প্রত্যাশার দিকে তাকিয়ে রয়েছেন সাধারন বিনিয়োগকারীরা।

এদিকে সপ্তাহজুড়ে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের দর বৃদ্ধি পাওয়ায় সব সূচকের উন্নতি ঘটেছে। ফলে ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে দেশের পুঁজিবাজার। এর ধারাবাহিকতায় বেড়েছে টাকার অংকে লেনদেনের পরিমাণ, বাজার মূলধন ও পিই রেশিও।

দীর্ঘদিন দরপতনের পর শেয়ার মূল্য অনেকটা কমে গেছে। ফলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি বিদেশিরা দেশের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে সক্রিয় হচ্ছেন। এতে করে বিনিয়োকারীদের মধ্যে শেয়ারবাজারের প্রতি আস্থা ফিরে আসায় বাজারে সক্রিয় হচ্ছেন তারা। একই সঙ্গে এক্সপোজার সমস্যা সমাধান হওয়ায় ব্যাংকের বিনিয়োগ বাড়ানোরও ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সামনের দিনগুলোতে আরো ইতিবাচক হবে দেশের পুঁজিবাজার বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

একাধিক বিনিয়োগকারীদের মতে, পুঁজিবাজার বর্তমানে কিছুটা স্বাভাবিক গতিতে চলতে শুরু করছে। বাজারে এ গতি অব্যাহত থাকলেও ফের বিনিয়োগকারীদের পদচারনায় মুখরিত হবে সিকিউরিটিজ হাউজ। তবে বর্তমান বাজারে কারসাজি চক্র সক্রিয় রয়েছে। এ ব্যাপারে নিয়ন্ত্রক সংস্থার সজাগ থাকতে হবে। কারন কওেয়কটি কোম্পানির শেয়ারের দর টানা বাড়ছে। এটা বাজারের জন্য ভাল দিক নয়।

Comments are closed.