Deshprothikhon-adv

ফরচুন সুজের আইপিও আবেদন শুরু ১৬ আগস্ট

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

forchun shoশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: শতভাগ রপ্তানিকারক জুতা প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফরচুন সুজ পুঁজিবাজার থেকে টাকা সংগ্রহের লক্ষে এরই মধ্যে গত ২৯ জুন অনুমোদন পেয়েছে। আর এ লক্ষ্যে আগামী ১৬ আগস্ট থেকে কোম্পানিটির প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) আবেদন শুরু হবে। চলবে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানিটি শেয়ারবাজারে ২ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ২২ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। যা দিয়ে ভবন নির্মাণ, মেশিন ও ইক্যুপমেন্ট ক্রয় করা হবে। এ ক্ষেত্রে কোম্পানিটি প্রতিটি শেয়ার ১০ টাকা মূল্যে (প্রিমিয়াম ব্যতীত) ইস্যু করবে। ২০১০ সালের ১৪ মার্চ প্রাইভেট কোম্পানি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করা ফরচুন সুজ ২০১১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর উৎপাদন শুরু করে। এরপরে ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি কোম্পানিটি পাবলিক কোম্পানি হিসাবে রুপান্তর হয়।

শতভাগ রুপ্তানিকারক ফরচুন সুজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জুতা রপ্তানি করে থাকে। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে- তাইওয়ান, নেদারল্যান্ডস, স্পেইন, সুইজারল্যান্ড, কানাডা ও জার্মানি। কোম্পানিটি শিশু, নারী, পুরুষ সবার জন্য জুতা তৈরী করে।

কোম্পানিটি সর্বশেষ ৯ মাসে (২০১৫ জুন-২০১৬ ফেব্রুয়ারি) ৭৩ কোটি ৮৬ লাখ টাকার বিক্রয় ও ৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা মুনাফা করেছে। এ ৯ মাসে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৩ টাকা। কোম্পানিটি আগের অর্থবছরে (২০১৪ জুন-২০১৫ মে) ৯১ কোটি বিক্রয় করে। এখান থেকে ৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা মুনাফা করে।

৭৫ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটিতে ২৮ কোটি ১০ লাখ টাকার সংরক্ষিত আয় রয়েছে। যাতে শেয়ারপ্রতি সম্পদ দাড়িয়েছে ১৩.৭৫ টাকা করে। আর কোম্পানিটি শুধুমাত্র অভিহিত মূল্যে শেয়ারবাজারে আসার কারনে আইপিও পরবর্তী সময়ে তা দাড়াবে ১২.৯০ টাকায়। এক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীরা আইপিওতে ১০ টাকা বিনিয়োগ করলেও মালিকানা পাবে আরো ২.৯০ টাকার বেশি।

কোম্পানিটিতে চেয়ারম্যান হিসেবে মো. মিজানুর রহমান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসাবে রোকসানা রহমান রয়েছেন। এ ছাড়া পরিচালনা পর্ষদে রয়েছেন মো. আমানুর রহমান, মো. রবিউল ইসলাম ও স্বতন্ত্র পরিচালক হিসাবে মো. রুহুল আমিন মোল্লা। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে ইমপেরিয়াল কেপিটাল ও প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট।

Comments are closed.