Deshprothikhon-adv

পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতায় স্বল্পমেয়াদী উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

share lagoশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা:  পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গত ১ থেকে ৯ জুলাই মোট নয় দিন বন্ধ ছিল দেশের পুঁজিবাজার। আর নয় দিনের দীর্ঘ ছুটির পর প্রথম কার্যদিবস রোববার দেশের উভয় শেয়ারবাজারে সূচকের পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন শুরু হয় যা শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। দিনশেষে দরপতন হয়েছে লেনদেন হওয়া বেশিভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের। টাকার অংকে লেনদেনেও ছিল খরা।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, ঈদের পর বাজার চাঙা হবে, এমনটাই মনে করেছিল বিনিয়োগকারীরা। কিন্তু প্রথমদিনই দরপতনে তারা হতাশ। প্রথমদিন শেয়ার বিক্রির চাপ বেশি থাকায় বাজারে দরপতন হয়েছে। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নিষ্ক্রিয় থাকায় লেনদেনও কম হয়েছে।

তাদের মতে, বাজারের গতি ফেরাতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিলেও স্বল্পমেয়াদি কোনো উদ্যোগ নেই। ফলে, বর্তমানে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এছাড়াও বাজেটে সুনির্দিষ্ট কোনো দিকনির্দেশনা না থাকায় প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর পাশাপাশি আস্থাহীনতা ভোগছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। তারা বলছেন, বাজারে যে পরিমাণ শেয়ার বেড়েছে সেই হারে বিনিয়োগকারী বাড়েনি। ফলে, বাজারের সার্বিক লেনদেন ৩০০ কোটি টাকায় ঘুরপাক খাচ্ছে।

তবে এ অবস্থার উন্নতি চাইলে যেসব কোম্পানির আর্থিক ভিত্তি খুবই মজবুত অবস্থানে আছে বাজারে তাদের তালিকাভুক্ত করতে হবে। একই সঙ্গে বাজার স্থিতিশীলতায় সকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্টদেরও এগিয়ে আসতে হবে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, রোববার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের চেয়ে ১২ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৪৯৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এছাড়াও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ১০৪ পয়েন্টে এবং ডিএসই৩০ সূচক ১১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৭৫৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৩২৮ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট। যা আগের দিনের চেয়ে ৭ কোটি টাকা কম। রোববার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৩২১ কোটি টাকা। ডিএসইতে মোট ৩১৩টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বেড়েছে ৭৩টির, কমেছে ২০৫টির এবং অপরিবর্তিত আছে ৩৫টির শেয়ার দর।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স ৮ পয়েন্ট কমে ৮ হাজার ৩৮৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এছাড়া সিএসই৫০ সূচক দশমিক ৩৩ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ২৮ পয়েন্টে, সিএসই৩০ সূচক ৫ পয়েন্ট কমে ১২ হাজার ৭৬৭ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ১৬ পয়েন্ট কমে ১৩ হাজার ৭৮৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসআই শরিয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট কমে ৯৮১ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সিএসইতে টাকা অংকে লেনদেন হয়েছে ১১ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট। এদিন সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৩১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিটের। এর মধ্যে বেড়েছে ৬৫টির, কমেছে ১৪৭টির এবং অপরিবর্তিত আছে ১৯টি কোম্পানির শেয়ার দর।

Comments are closed.