Deshprothikhon-adv

পুঁজিবাজারে স্বল্পমেয়াদী পরিকল্পনা না থাকায় টানা দরপতন!

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

dse-up-dowenশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারে টানা দরপতনে বিনিয়োগকারীদের কান্না শুনবে কে। এ প্রশ্ন এখন খোদ সিকিউরিটিজ হাউজগুলোতে ঘুরপাক খাচ্ছে। কারন আর কত দরপতন । দরপতন সয্য করতে করতে বিনিয়োগকারীরা দীর্ঘ ছয় বছর অিতিক্রম করছে। এদিকে প্রতিনিয়ত দরপতন হচ্ছে দেশের শেয়ারবাজারে। ফলে, অস্থির হয়ে পড়ছে বাজার।

টানা পতনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। গত কয়েক সপ্তাহের দরপতনের ধারাবাহিকতায় চলতি সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার দেশের উভয় শেয়ারবাজারে সব ধরনের সূচকের পতন হয়েছে। একই সঙ্গে কমেছে লেনদেন হওয়া অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। তবে সামান্য বেড়েছে টাকার অংকে লেনদেনের পরিমান।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, বাজারের গতি ফেরাতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিলেও স্বল্পমেয়াদী কোনো উদ্যোগ নেই। ফলে বর্তমানে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এছাড়াও প্রস্তাবিত বাজেটে সুনির্দিষ্ট কোনো দিকনির্দেশনা না থাকায় প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর নিস্ক্রিয়। পাশাপাশি দিশেহারা হয়ে পড়ছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা।

তারা বলছেন, বাজারে যে পরিমাণ শেয়ার বেড়েছে সেই হারে বিনিয়োগকারী বাড়েনি। ফলে, বাজারের সার্বিক লেনদেন ৩০০ কোটি টাকার ঘরে ঘুরপাক খাচ্ছে। তবে এ অবস্থার উন্নতি চাইলে যেসব কোম্পানির আর্থিক ভিত্তি খুবই মজবুত অবস্থানে আছে বাজারে তাদের তালিকাভুক্ত করতে হবে। একই সঙ্গে বাজার স্থিতিশীলতায় সকারের পাশাপাশ সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসতে হবে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সোমবার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ১৮ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৩৬৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এছাড়াও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৭৫ পয়েন্টে এবং ডিএসই৩০ সূচক ১১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৭১২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৩২৮ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিট। যা আগের দিনের চেয়ে ৭ কোটি টাকা কম। রোববার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৩২১ কোটি টাকা। ডিএসইতে মোট ৩২০টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বেড়েছে ৭৩টির, কমেছে ১৭৯টির এবং অপরিবর্তিত আছে ৬৮টির শেয়ার দর।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স ৪৬ পয়েন্ট কমে ৮ হাজার ১৭৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এছাড়া সিএসই৫০ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে ৯৯২ পয়েন্টে, সিএসই৩০ সূচক ৫৩ পয়েন্ট কমে ১২ হাজার ৩৮৪ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ৭৫ পয়েন্ট কমে ১৩ হাজার ৪৩৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসআই শরিয়াহ সূচক দশমিক ৫ পয়েন্ট কমে ৯৫৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সিএসইতে টাকা অংকে লেনদেন হয়েছে ১৯ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিট। মোট লেনদেন হয়েছে ২৩৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিটের। এর মধ্যে বেড়েছে ৫৬টির, কমেছে ১৪১ টির এবং অপরিবর্তিত আছে ৪২টি কোম্পানির শেয়ার দর।

Comments are closed.