Deshprothikhon-adv

পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতার আভাস, দু:চিন্তার কারন নেই

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

indexশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজার ধীর গতিতে স্থিতিশীলতার দিকে যাচ্ছে। আজ লেনদেনের শুরুতে সুচকের দরপতন হলে ও দিনশেষে সুচকের উন্নতি হয়েছে। এটা স্থিতিশীল বাজারের লক্ষন। কারন বুধবার সুচকের কিছুটা কারেকশন হলে বৃহস্পতিবার বাজার ঘুরে দাঁড়ায়। আমরা বুধবার শেয়ারবার্তা হেডলাইনে লিখছিলাম কিছুটা কারেকশন, আঙ্কিত হওয়ারে কিছু নেই। বৃহস্পতিবার বাজার ঘুরে দাঁড়াবো। আজ তাই হলো।

তাই বিনিয়োগকারীদের বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে ধৈর্য্য ধরার কোন বিকল্প নেই। দেখে শুনে বিনিরেয়াগ করলো লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কারন বর্তমান বাজারে মাঝে মধ্যে কিছু না কিছু কোম্পানির শেয়ারের দর তো আকাশচুম্মী বাড়ছে। যারা লেনেদেনের গ্রাফ দেরখ বিনিয়োগ করছে তারাই তো লাভবান হচ্ছে। তাই বুঝে শুনে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দিয়েছেন বাজার বিশ্লেষকরা।

dse-indexএদিকে টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী সপ্তাহের শেষ কার্জ দিবসে ঢাকা শেয়ার বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়- ডিএসইএক্স ইনডেক্স লেনদেনের শুরু থেকেই বৃদ্ধি পেতে থাকে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ডিএসই এক্স ইনডেক্স এবং লেনদেন উভয়ই বাড়তে থাকে এবং দিন শেষে ডিএসইএক্স ইনডেক্স বুলিশ ক্যান্ডেলস্টিক তৈরি  করে। ডিএসই এক্স ইনডেক্স ২১.৯৭ পয়েন্ট বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩৮৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে, যা আগের দিনের তুলনায় ০.৫০% বৃদ্ধি পেয়েছে।

বর্তমানে ডিএসই এক্স ইনডেক্স এর পরবর্তী সাপোর্ট ৪৩৫০ পয়েন্টে এবং রেজিটেন্স ৪৪৬৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আজ বাজারে এম.এফ.আই এর মান ছিল ৬৮.৯৮ এবং আল্টিমেট অক্সিলেটরের মান ছিল ৬১.৯৭। ডিএসই এক্স ইনডেক্স এর জঝও এর মান হচ্ছে ৫৭.২০।

ডিএসইতে ১০ কোটি ৯৬ লাখ ৭৬ হাজার ৪৬১ টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড লেনদেন হয়, যার মূল্য ছিল ৩৪৯ কোটি টাকা। ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ২৬ কোটি টাকা। ঢাকা শেয়ারবাজারে ৩১৪ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে, যার মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫১ টির, কমেছে ৯৯ টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৬৪ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম।ঝপৎববহংযড়ঃথ১

পরিশোধিত মূলধনের দিক থেকে দেখা যায়, বাজারে চাহিদা বেশী ছিল ১০০-৩০০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের যা আগেরদিনের তুলনায় ১৯.৬৬% বেড়েছে। অন্যদিকে বেড়েছে ৩০০ কোটি টাকার উপরে পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের যা আগেরদিনের তুলনায় ১৯.০১% বেশী। অন্যদিকে ০-২০ এবং ২০-৫০ কোটি টাকার পরিশোধিত মুলধনী প্রতিষ্ঠানের লেনদেনের পরিমান গতকালের তুলনায় ১৮.০২% এবং ৯.৮৫% কমেছে।

পিই রেশিও ৪০ এর উপরে থাকা শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ৫.২২% কমেছে। অন্যদিকে পিই রেশিও ২০-৪০ এর মধ্যে থাকা শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ২৭.৮২% বেড়েছে। ক্যাটাগরির দিক থেকে এগিয়ে ছিল ‘এন’ ক্যাটাগরির শেয়ারের লেনদেন যা আগেরদিনের তুলনায় ৪৭.৬২% বেশী ছিল। বেড়েছে ‘জেড’  ক্যাটাগরির শেয়ারের লেনদেন যা আগেরদিনের তুলনায় ৩৫.৭২% বেশী ছিল।

Comments are closed.