Deshprothikhon-adv

বস্ত্র খাতের শেয়ারের উর্ধ্বমুখীতে বিনিয়োগকারীরা ফুরফুরে

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

dse-indexশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারে আজ সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সুচকের উর্ধ্বমুখী প্রবনতার মধ্যে দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। সকালে লেনদেনের শুরুতে নিন্মমুখী প্রবনতা থাকলেও দিনশেষে সুচকের গকি বাড়তে থাকে। বস্ত্র খাতের কোম্পানির কমছে করপোরেট ট্যাক্স।

বৈঠকে এমন প্রস্তাব উত্থাপিত হওয়ার ঘোষণায় বৃহস্পতিবার দুপুরে টেক্সটাইল খাতের অনেক কোম্পানির শেয়ার দর ঊর্ধমূখী অবস্থান নিয়েছে। একই সঙ্গে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) অন্য খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দর বাড়লেও টেক্সটাইল খাতের প্রাধান্য বেশি।

texডিএসইতে বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, এই খাতের ৪৪ টি কোম্পানির মধ্যে বৃহস্পতিবার দুপুরে দর কমেছে মাত্র ৪টির। শেয়ার লেনদেনে বন্ধ একটি কোম্পানি বাদে ৫টি কোম্পানির দরে সমতা লক্ষ্য করা গেছে। অন্যদিকে কম-বেশি দর বেড়েছে সবগুলো কেম্পানির। দর বৃদ্ধিতে সন্তোষ প্রকাশ করছেন অধিকাংশ বিনিয়োগকারী।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ কমেছে। আজ ডিএসইতে আগের দিনের তুলনায় প্রায় ৭ শতাংশ লেনদেন কমেছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়,  বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৩৪৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে; যা আগের দিনের তুলনায় প্রায় ২৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা কম। গতকাল এ বাজারে লেনদেন হয়েছিল ৩৭৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

এদিন ডিএসইতে মোট লেনদেনে অংশ নেয় ৩১৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫১টির, কমেছে ৯৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬৪টির শেয়ার দর।

এদিকে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক ২১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৩৮৮ পয়েন্টে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭৬ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৭০৭ পয়েন্টে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এনবিআরকে আসন্ন জাতীয় বাজেটে তৈরি পোশাক খাতের করপোরেট ট্যাক্স, অগ্নি নিরাপত্তা সরঞ্জাম আমদানি শুল্কমুক্ত এবং রফতানি খাত হিসেবে খাতকে বুধবার ভ্যাটমুক্ত করার আহ্বান জানায় তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ। এরপরে বৃহস্পতিবার পোশাক খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ার দরে হাওয়া লাগে। এমনটাই ধরনা করছেন অনেকে।

বিজিএমইএ পোশাক খাতের করপোরেট টেক্স ৩৫ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ এবং অগ্নি নিরাপত্তা সরঞ্জাম আমদানিতে পাঁচ শতাংশের স্থলে শুল্কমুক্ত করার আহ্বান জানান। এনবিআরের চেয়ারম্যান মো. নজিবর রহমানসহ বৈঠকে অন্যদের মধ্যে ছিলেন বিজিএমইএ সহসভাপতি মোহাম্মদ নাসির, সহসভাপতি মাহমুদ হাসান খান বাবু ও এনবিআরের ১০ সদস্যে একটি প্রতিনিধি দল।

সূত্র জানায়, তৈরি পোশাকশিল্পকে টেক্স কম্পালাইন্স খাত শিল্প হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা দিতে চায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এজন্য তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ এবং এনবিআরের মধ্যে বুধবার এক মতবিনিময় সভা হয়। এ বৈঠককে উভয় পক্ষই পার্টনারশিপ সভা বলে একমত হয়েছেন। এনবিআরের প্রত্যাশা-প্রতি তিন মাস পরপর এই বৈঠক হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এনবিআরের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল পারস্পরিক সম্পর্কের উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিতে একসঙ্গে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এছাড়া তৈরি পোশাক খাতের অটোমেশনসহ ২০২১ সালের পোশাক খাতের ৫০ বিলিয়ন ডলার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দুই পক্ষ একসঙ্গে কাজ করার বিষয়ে একমত হয়।

মাহমুদ হাসান খান বাবু জানান, এনবিআরের সঙ্গে বিজিএমইএ অনানুষ্ঠানিক এই বৈঠকে আসন্ন বাজেটে করপোরেট টেক্স ৩৫ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ করা এবং অগ্নি নিরাপত্তা সরঞ্জাম আমদানিতে পাঁচ শতাংশের স্থলে শুল্কমুক্ত করার জন্য বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয় এনবিআরকে।

Comments are closed.