Deshprothikhon-adv

আইপিও বন্ধের সুপারিশে এবার বিএসইসি’র সম্মতি

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

bsec lagoশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের মুখ পাত্র সাইফুর রহমান বলেন, এক্সপোজার লিমিটে সময় না বাড়িয়ে সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর মুলধন বাড়ানোর মাধ্যমে সমন্বয়ের যে নীতি বাংলাদেশ ব্যাংক গ্রহন করেছে তা বাজারের জরন্য ফলপ্রসু হবে। এতে বাজারে সেল প্রেসার করে যাবে। পাশাপাশি পুঁজিবাজার ইতিবাচক অবস্থায় ঘুরে দাঁড়াবো।

আজ বিকেলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সাথে পুঁজিবাজার নিয়ে বিএমবিএ ও শীর্ষ স্টক ব্রোকারদের এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন মন্তব্য করেন। বৈঠকে বাজারকে কিভাবে ভালো করা যায় তার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা হয়। নতুন আইপিও বন্ধ রাখা, কোম্পানির স্পন্সর শেয়ার বিক্রি আপাতত বন্ধ রাখা, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর সেল বাড়ানোর যথাযথ উদ্যোগ নেয়া বিষয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠকে ডিলার একাউন্টের সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ আসে। আলোচনা শেষে বিএসইস’র পক্ষ থেকে খুব দ্রুতই এগুলো বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়।
এছাড়া এক্সপোজারের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক যথাযথ উদ্যোগ নিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) প্রেসিডেন্ট মো.ছায়েদুর রহমান।

বৈঠক শেষে বেরিয়ে বিএমবিএ’র প্রেসিডেন্ট মো.ছায়েদুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক যে ইনিশিয়েটিভ নিয়েছে তা বুঝতে হয়ত একটু সময় লাগবে। কিন্তু এটা যথাযথ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এজন্য আমি প্রেস ব্রিফিংয়ের পরের দিন বাংলাদেশ ব্যাংককে ধন্যবাদ জানিয়ে এসেছি।

আজকের বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রেস ব্রিফিং নিয়ে তিনি বলেন, প্রথম দিনের প্রেস ব্রিফিংয়ে আপনারা (সাংবাদিকরা) ছিলেন। এ নিয়ে একেকটি মিডিয়ায় একেক ধরণের বক্তব্য এসেছে। এতে আমরা কনফিউসড হয়ে গেছি। তাই আমরা বাংলাদেশ ব্যাংককে অনুরোধ জানিয়েছি বিষয়টি ক্লিয়ার করার জন্য।

এক্সপোজার নিয়ে ছায়েদুর রহমান বলেন, সময় বাড়ালে আবার দুই বছর পর বা একবছর পর বিক্রির জন্য আরেকটি মাথা ব্যাথা হত। কিন্তু বিষয়টি একবারে সেটেলড হয়ে গেছে এটিই ভাল হয়েছে বলে আমি মনে করি।

এল ফলে দুটি বিষয়ের সমাধান হয়েছে, একটি হল সাবসিডিয়ারি বাড়ল অন্যদিকে বিক্রি করার যে চাপ ছিল সেটিও মাথা থেকে চলে গেল। বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কূলার ইস্যুটি নিয়েও বিএসইসির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটি একটি পজেটিভ নিউজ।

এটাকে যেন আমরা পজেটিভলি দেখি সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের আজকের ব্রিফিংয়ের পর এখন কি পতন থেমে যাবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা আমরা বলতে পারব না।তবে আমরা মার্কেট নিয়ে আশাবাদী।

Leave A Reply