Deshprothikhon-adv

বিএসআরএম লিমিটেডের ৪০ লাখ শেয়ার বাজারে আসছে

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

bsrm lagoশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশলী খাতের কোম্পানি বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস (বিএসআরএম) লিমিটেডের ৪০ লাখ ১০ হাজার ৫২৩টি নতুন শেয়ার আগামী ২৯ এপ্রিল বাজারে আসছে। ডিএসই ও কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। কোম্পানির ইস্যু করা রূপান্তরযোগ্য বন্ডের (Convertible Bond) শেয়ার এগুলো। এতোদিন এসব শেয়ারে বিক্রির নিষেধাজ্ঞা ((Lockin) ছিল।

জানা গেছে, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমতি নিয়ে কোম্পানিটি গত বছরের ২৯ এপ্রিল বন্ডহোল্ডারদের মধ্যে এ শেয়ার ইস্যু করা । বিধি অনুসারে এ শেয়ারে ১ বছরের লকইন ছিল। কোনো শেয়ারে লকইন থাকলে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ওই শেয়ার বিক্রি, হস্তান্তর বা উপহার দেওয়া যায় না।

ছয়টি ব্যাংক ও একটি নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আলোচিত শেয়ারগুলো ধারণ করছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড, ফার্মার্স ব্যাংক লিমিটেড, মিডল্যান্ড ব্যাংক লিমিটেড, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, সাবিনকো, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড এবং বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড।

জানা গেছে, বিএসআরএম লিমিটেড ২৮ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩৮ টাকা দরে ওই শেয়ার ইস্যু করে। এর আগে প্রতিষ্ঠানটি ১৫০ কোটি টাকা মূল্যের ১২% রূপান্তরযোগ্য বন্ড ইস্যু করে ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড ১০ কোটি টাকা, ফার্মাস ব্যাংক লিমিটেড ২০ কোটি টাকা, মিডল্যান্ড ব্যাংক লিমিটেড ২০ কোটি টাকা, এনআরবি কর্মাশিয়াল ব্যাংক লিমিটেড ৫০ কোটি টাকা, সাবিনকো ২৩ কোটি টাকা, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড ১৫ কোটি টাকা এবং বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড ১২ কোটি টাকা মূল্যের বন্ড কিনে।

রূপান্তরের পর ব্যাংক এশিয়া পেয়েছে  ৩ লাখ ১৫ হাজার ৭৮৯ টি শেয়ার। ফার্মার্স ব্যাংক ৬ লাখ ৩১ হাজার শেয়ার, মিডল্যান্ড ব্যাংক ৬ লাখ ৩১ হাজার,  এনআরবি কমার্শিয়াল ভ্যাংক ১৫ লাখ ৭৮ হাজার শেয়ার, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৪ লাখ ৭৩ হাজার শেয়ার এবং বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক ৩ লাখ ৭৮ হাজার শেয়ার পেয়েছে।

এদিকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ সমাপ্ত হিসাব বছরের শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। যার মধ্য ১০ শতাংশ বোনাস আর ৫ শতাংশ নগদ। বন্ডহোল্ডারা এ লভ্যাংশ পেয়েছে। ফলে ৩৮ টাকা শেয়ার প্রতিষ্ঠানগুলোর দাম পড়েছে প্রায় ৩৪ টাকা। সর্বশেষ কার্য দিবসে শেয়ারটির লেনদেন হয়েছে ১৭৬ টাকা ৭০ দরে। সে হিসাবে বন্ডহোল্ডারদের বর্তমান বাজার দরে লাভ আছে প্রায় ১৪৩ কোটি টাকা।

Leave A Reply