Deshprothikhon-adv

২৯ কোম্পানি ভুল তথ্য দিয়ে বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্তি করছে!

0
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Yummly0Share on StumbleUpon0Share on Reddit0Flattr the authorEmail this to someonePrint this page

dse lagoশেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত ২৯ কোম্পানি ইপিএস নিয়ে বিনিয়োগকারীদের সাথে প্রতারনা করছে। তালিকাভুক্ত ২৯ কোম্পানির প্রান্তিক প্রতিবেদনে গরমিল ধরা পড়েছে। সম্প্রতি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ওয়েবসাইটের আধুনিকায়ন করতে গিয়ে এমন সমস্যায় পড়েছে খোদ ডিএসই।

এ ঘটনার ফলে এসব কোম্পানির প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কমে যাবে বলে বাজার বিশ্লেষকরা মনে করেন। তাছাড়া ভুল তথ্য দিয়ে বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্তি করা বড় ধরনের অপরাধ বলে তারা মনে করেন।  আজ বেলা ১ টায় ডিএসই প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য জানান প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. স্বপন কুমার বালা।

এ সময় তিনি বলেন, কোম্পানিগুলোর প্রান্তিক প্রতিবেদনের তথ্যে ব্যাপক গরমিল রয়েছে। যার ফলে ওয়েবসাইটের আধুনিকায়ন করতে গিয়ে সমস্যায় পড়েছে ডিএসই। এজন্য আমারা কোম্পানিগুলোকে তথ্যের গরমিলের কারণ জানতে চেয়ে চিঠিও প্রদান করেছি। পরবর্তীতে তার সংশোধন হলে ওয়েবসাইটে সঠিকভাবে প্রকাশ করা হবে।

২৯টি কোম্পানির প্রান্তিক হিসাবের ক্ষেত্রে গরমিল পাওয়া প্রসঙ্গে উদাহরণ হিসাবে তিনি বলেন, কোন কোম্পানি হয়ত প্রথম প্রান্তিকে ২ টাকা ও দ্বিতীয় প্রান্তিকে ৩ টাকা ইপিএস দেখিয়েছে। দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ৫ টাকা দেখানোর কথা। কোম্পানি ৬ টাকা বা ৪ টাকা দেখিয়েছে।

এখন থেকে কোন কোম্পানি তথ্য দেওয়ার ক্ষেত্রে এমন গরমিল করলে তাও দেখা যাবে। অনিরীক্ষিত প্রান্তিক প্রতিবেদনে অসঙ্গতিপূর্ণ বা ভুল তথ্য দেওয়ায় তালিকাভূক্ত ২৯ কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডকে কারণ দর্শানোর নোটিশ অর্থাৎ শোকজ দিয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)।

এ কোম্পানিগুলো হলো: লিবরা ইনফিউশন, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স, এনসিসি ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান, নর্দার্ণ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল পলিমার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, পিএইচপি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, পিপলস লিজিং, পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, রিজেন্ট টেক্সটাইল, সাফকো স্পিনিং, সায়হাম কটন মিলস, শাশা ডেনিম, ওয়াটা কেমিক্যাল, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড এবং ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ড

বাংলাদেশ সার্ভিস লি:, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি, ঢাকা ডাইং, ডরিন পাওয়ার, ড্রাগন সোয়েটার, এআইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এএফসি এগ্রো, ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ইবিএল এনআরবি মিউচ্যুয়াল ফান্ড, গোল্ডেন সন, ইবনে সিনা, আইএফআইসি ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, । ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. স্বপন কুমার বালা বলেন, ৩০ কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ডিএসই-তে পাঠানো অনিরীক্ষিত প্রান্তিক প্রতিবেদনে অসঙ্গতিপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। তাই এ কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। অসঙ্গতিপূর্ণ তথ্য দেয়ায় এ কোম্পানিগুলের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

লিবরা ইনফিউশন: কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিকের ছয় মাসের হিসেবে মুনাফা দেখিয়েছে ৩৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা। কিন্তু দুই প্রান্তিকের মুনাফার হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় মোট মুনাফার পরিমান ৬ লাখ ১০ হাজার টাকা।

কন্টিনিউইং অপারেশন এবং কমপ্রিহেনসিভ আয়ের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ভুল দেখা গেছে। এ কারনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়ের (ইপিএস) হিসেবেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএসে বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএস হয়েছে ০.৪৮ টাকা যা দেখানো হয়েছে ২.৬৯ টাকা।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক: ব্যাংকের তৃতীয় প্রান্তিকের নয় মাসের হিসেবে টার্নওভার দেখিয়েছে ১৭০ কোটি ৯১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। কিন্তু তিন প্রান্তিকের টার্নওভারের হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় টার্নওভারের পরিমান হয়েছে ১৮৮ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে টার্নওভার বেশি দেখিয়েছে। তবে এ সময়ে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। ৬ মাসের হিসাবেও কোম্পানিটি একই ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.৫৯ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.৪১ টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস এক (১.০০) টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ০.৯৮ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

নর্দার্ণ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। ৬ মাসের হিসাবেও কোম্পানিটি একই ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ১.৩৩ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ১.০১ টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ২.৩৪ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ১.৯৫ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

ন্যাশনাল পলিমার: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৬ মাসের হিসাবে টার্নওভার, কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.৭১ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.৭৭ টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ১.৪৮ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ১.১৮ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে  কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। ৬ মাসের হিসাবেও কোম্পানিটি একই ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.৩৭ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.২৪ টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ০.৬১ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ০.৪৯ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

পিএইচপি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: ফান্ডটি প্রথম এবং দ্বিতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৬ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) বেশি দেখিয়েছে। এর মধ্যে ফান্ডটি দ্বিতীয় প্রান্তিকে লোকসান করেছে। অর্থাৎ ফান্ডটির ইপিইউ প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.০৯ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে (০.২৫) টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিইউ (০.১৬) টাকা লোকসান হলেও ফান্ডটি ইপিইউ ০.৪১ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: ফান্ডটি প্রথম এবং দ্বিতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৬ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) বেশি দেখিয়েছে। এর মধ্যে ফান্ডটি দ্বিতীয় প্রান্তিকে লোকসান করেছে। অর্থাৎ ফান্ডটির ইপিইউ প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.২০ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে (০.০৪) টাকা লোকসান। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিইউ ০.১৬ টাকা হলেও ফান্ডটি ইপিইউ ০.৩৫ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

রিজেন্ট টেক্সটাইল: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে টার্নওভার, কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বেশি দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

সাফকো স্পিনিং: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবংশেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বেশি দেখিয়েছে। ৬ মাসের হিসাবেও কোম্পানিটি একই ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে।

অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.১৬ টাকা এবং দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.১৭ টাকা। আর এ দুই প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ০.৩৩ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ০.৫০ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

শাশা ডেনিম: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ১.৩২ টাকা, দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ১.৫৪ টাকা এবং তৃতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ১.০৮ টাকা। আর এ তিন প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ৩.৯৪ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ৩.৬৪ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

ওয়াটা কেমিক্যাল: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বেশি দেখিয়েছে। ৬ মাসের হিসাবেও কোম্পানিটি একই ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ১.১৯ টাকা, দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ১.২১ টাকা এবং তৃতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.৫৮ টাকা। আর এ তিন প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ২.৯৮ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ৩.০৬ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড: কোম্পানিটি প্রথম, দ্বিতীয় প্রান্তিক এবং তৃতীয় প্রান্তিক মিলিয়ে অর্থাৎ মোট ৯ মাসের হিসাবে কর পরিশোধের পর নীট মুনাফা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) কম দেখিয়েছে। অর্থাৎ কোম্পানিটির ইপিএস প্রথম প্রান্তিকে হয়েছে ০.৪৯ টাকা, দ্বিতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.৪৪ টাকা এবং তৃতীয় প্রান্তিকে হয়েছে ০.০৯ টাকা। আর এ তিন প্রান্তিক মিলিয়ে ইপিএস ১.০২ টাকা হলেও কোম্পানিটি ইপিএস ০.৬৯ টাকা দেখিয়েছে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে।

এএফসি অ্যাগ্রো বায়োটেক: কোম্পানির তৃতীয় প্রান্তিকের নয় মাসের হিসেবে মুনাফা দেখিয়েছে ১৫ কোটি ৪৮ লাখ ১০ হাজার টাকা। কিন্তু তিন প্রান্তিকের মুনাফার হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় মোট মুনাফার পরিমান ১৫ কোটি ৩৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা হওয়ার কথা ছিল। কমপ্রিহেনসিভ আয়ের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ভুল দেখা গেছে। এ কারনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়ের (ইপিএস) হিসেবেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক এবং ডিলিউটেড ইপিএসেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ও ডিলিউটেড ইপিএস যথাক্রমে ০.৬৬ ও ০.৪৯ টাকা হয়েছে।

এআইবিএল ফার্স্ট ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ড: ফান্ডের ব্যবস্থাপক এল আর গ্লোবাল অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের আয়ের ক্ষেত্রে অনেকগুলো বিভ্রান্তিকর এবং ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে বলে উঠে এসেছে। অর্ধ-বার্ষিক প্রতিবেদনে কর পরিশোধের পর মুনাফার পরিমান ১৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা উল্লেখ করা হলেও আগের দু প্রান্তিকের হিসাব থেকে মুনাফার পরিমান আসার কথা ছিল ১৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা। এ কারনে তৃতীয় প্রান্তিকের হিসেবেও গড়মিল দেখা গেছে। তৃতীয় প্রান্তিক শেষে ফান্ডের মুনাফার পরিমান ১৫ কোটি ৪৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা হওয়ার কথা থাকলেও দেখানো হয়েছে ১৫ কোটি ৩৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আয়ের এ বিভ্রান্তির কারনে ইপিএসেও উঠে এসেছে বিভ্রান্তি।

বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড: বিডি সার্ভিসেস লিমিটেডের শেয়ার প্রতি আয়ের হিসেবেও গড়মিল দেখা গেছে। কোম্পানির অর্ধ-বার্ষিক প্রতিবেদনে কর পরিশোধের পর লোকসানের পরিমান দেখিয়েছে ১৭ কোটি ৪৭ লাখ টাকা এবং তৃতীয় প্রান্তিক শেষে লোকসানের পরিমান দেখিয়েছে ২৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। এ কারনে শেয়ার প্রতি আয়ের পরিমানেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। শেয়ার প্রতি লোকসানের পরিমান ৪.২০ টাকা হওয়ার কথা থাকলেও কোম্পানি এ হিসাব দেখিয়েছে ২.০৫ টাকা। একই ভুল হয়েছে তৃতীয় প্রান্তিকের ইপিএসে, প্রতিবারই শেয়ার প্রতি লোকসানের পরিমান কম দেখিয়েছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

বিআইএফসি: আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠান বিআইএফসি ২০১৫ সালের আর্থিক প্রতিবেদনে লোকসানের পরিমান কম দেখিয়েছে। তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানির লোকসানের পরিমান অনেক বেশি হলেও কোম্পানির পক্ষ থেকে কম লোকসান দেখানো হয়েছে। এ কারনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসানের পরিমান কমে এসেছে। আগের প্রান্তিকগুলোর আর্থিক হিসাব অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসানের পরিমান ৪.৪৩ টাকা হলেও কর্তৃপক্ষ একে ৩.৯৭ উল্লেখ করেছে।

ঢাকা ডায়িং: ঢাকা ডায়িং কোম্পানির অর্ধ-বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ভুল তথ্য। কোম্পানি কর্তৃপক্ষ কর প্রদানের পর লোকসানের পরিমান কম দেখিয়েছে। এ কারনে কোম্পারি অর্ধ-বার্ষিক শেয়ার প্রতি লোকসানের পরিমানও কম দেখানো হয়েছে। এসময় কোম্পানির লোকসানের পরিমান ০.৭৩ টাকা হলেও দেখানো হয়েছে ০.৭০ টাকা।

ডোরিন পাওয়ার: পুঁজিবাজারে সদ্য তালিকাভুক্ত ডোরিন পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিসট্রিবিউশন কোম্পানি শেয়ার প্রতি আয়ের পরিমান বেশি দেখিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কোম্পানি অর্ধ-বার্ষিক প্রতিবেদনে তাদের শেয়ার প্রতি আয়ের পরিমান দেখিয়েছে ০.৬৬ টাকা যা সঠিক নয়। এ বিষয়ে কোম্পানির প্রধান হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা আফরোজ আলম বলেন, ‘আমরা আমাদের হিসাব খতিয়ে দেখব। এরপর বলা যাবে আসলে কোথায় ভুল হয়েছে’।

ড্রাগন সোয়েটার: সম্প্রতি তালিকাভুক্ত এ কোম্পানির আয়ের হিসাব দেখিয়েছে বিভ্রান্তিকর। এসময় কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বেশি দেখানো হয়েছে। তৃতীয় প্রান্তিক শেষে ইপিএস দেখানো হয়েছে ১.৩৪ টাকা।

ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: এ ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় অস্বাভাবিক বেশি দেখানো হয়েছে। অর্ধ-বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ফান্ডর ইউনিট প্রতি লোকসান আগের প্রান্তিকের হিসাব অনুযায়ী হয়েছে ০.০১০ টাকা। অথচ ফান্ডের ম্যানেজার এ হিসাবে দেখিয়েছে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয়ের পরিমান হয়েছে ০.৪১ টাকা।

ইবনে সিনা: ইবনেসিনার তৃতীয় প্রান্তিকের নয় মাসের হিসেবে মুনাফা দেখিয়েছে ৮ কোটি ৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা। কিন্তু তিন প্রান্তিকের মুনাফার হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় মোট মুনাফার পরিমান ৭ কোটি ৯১ লাখ ৭০ হাজার টাকা হওয়ার কথা ছিল। কমপ্রিহেনসিভ আয় এবং কন্টিনিউইং অপারেশন থেকে আয়ের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ভুল দেখা গেছে। এ কারনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়ের (ইপিএস) হিসেবেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএসেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএস হয়েছে ৩.৫৯ টাকা।

আইএফআইসি: ব্যাংকের তৃতীয় প্রান্তিকের নয় মাসের হিসেবে মুনাফা দেখিয়েছে ১০৫ কোটি ৪৭ লাখ ৩০ হাজার টাকা। কিন্তু তিন প্রান্তিকের মুনাফার হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় মোট মুনাফার পরিমান ১১১ কোটি ১৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা। কমপ্রিহেনসিভ আয়ের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ভুল দেখা গেছে। এ কারনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়ের (ইপিএস) হিসেবেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএসে বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএস হয়েছে ২.১০ টাকা।

আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: ফান্ডের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ছয় মাসের হিসেবে মুনাফা দেখিয়েছে ৪ কোটি ৪৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। কিন্তু দুই প্রান্তিকের মুনাফার হিসেব থেকে দেখা যায়, কোম্পানির এ সময় মোট মুনাফার পরিমান ২ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। কন্টিনিউইং অপারেশন এবং কমপ্রিহেনসিভ আয়ের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ভুল দেখা গেছে। এ কারনে কোম্পানির ইউনিট প্রতি আয়ের (ইপিইউ) হিসেবেও বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিইউ’তে বিভ্রান্তি উঠে এসেছে। কোম্পানির বেসিক ইপিএস হয়েছে ০.১৫ টাকা যা দেখানো হয়েছে ০.২৯ টাকা।

Leave A Reply