শেয়ারবার্তা ২৪ ডটকম, ঢাকা: টানা দরপতন থেকে বেরিয়ে আসার আভাস দিচ্ছে পুঁজিবাজার। গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া দুই কার্যদিবসেই ঊর্ধ্বমুখী প্রবনতা দেখা মিলেছে। ফলে ঈদের পর লেনদেন হওয়া দুই কার্যদিবসেই ছিলো চাঙা পুঁজিবাজার। এতে দুদিনেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন ১০ হাজার কোটি টাকার ওপরে বেড়ে গেছে। এরপরও গত মার্চের তুলনায় ডিএসই’র বাজার মূলধন কম আছে এক লাখ কোটি টাকার বেশি।

ঈদের পর পুঁজিবাজার কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী হলেও তার আগে দুই মাসের বেশি সময় ধরে পুঁজিবাজারে টানা দরপতন হয়। এতে ডিএসই’র বাজার মূলধন প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকা কমে যায়। ফলে হতাশা নিয়েই ঈদ উদযাপন করতে যেতে হয় পুঁজিবাজারের হাজার হাজার বিনিয়োগকারীদের। ঈদের পর পুঁজিবাজার কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী হলেও বিনিয়োগকারীদের মুখে হাসি এখনো ফোটেনি। কারণ ঈদের আগে টানা দরপতন হওয়ায় অধিকাংশ বিনিয়োগকারী বড় লোকসানের মধ্যে পতিত হন। এখনো অনেক বিনিয়োগকারী কোনো কোনো শেয়ারে ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ লোকসানে রয়েছেন।

বিনিয়োগকারীরা বলছেন, ঈদের আগে যে পরিমাণ লোকসানের মধ্যে পড়তে হয়েছে, সেই লোকসান কাভার করতে একটানা এক-দেড় মাস পুঁজিবাজার ঊর্ধ্বমুখী থাকতে হবে। তারপরও অনেক বিনিয়োগকারীর লোকসান পুরোপুরি কাভার হবে না।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, ঈদের পর প্রথম কার্যদিবসে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক বাড়ে ৪৩ দশমিক ৫৭ পয়েন্ট এবং দ্বিতীয় দিনে বাড়ে ৮২ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট। অর্থাৎ দুদিনে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক বেড়েছে ১২৬ পয়েন্ট। সূচকের বড় উত্থান হওয়ার পাশাপাশি দুই কার্যদিবসেই দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান। ফলে শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসই’র বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৪৩ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকা। ঈদের আগে শেষ কার্যদিবসে ডিএসই’র বাজার মূলধন ছিল ৬ লাখ ৩৩ হাজার ৫৯৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ ঈদের পর দুদিনে ডিএসই’র বাজার মূলধন বেড়েছে ১০ হাজার ৫৬ কোটি টাকা।

ঈদের পর ১০ হাজার কোটি টাকার ওপরে বাজার মূলধন বাড়লেও তার আগে প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকা বাজার মূলধন কমে। গত ৩ মার্চ ডিএসই’র বাজার মূলধন ছিল ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৩৯ কোটি টাকা। সেখান থেকে ধারাবাহিকভাবে কমে ১২ জুন ডিএসই’র বাজার মূলধন ৬ লাখ ৩০ হাজার ৩৪৯ কোটি টাকায় নেমে আসে। অর্থাৎ দুই মাসের বেশি সময় ধরে চলা দরপতনে ডিএসই’র বাজার মূলধন কমে ১ লাখ ২৬ হাজার ৬৯০ কোটি টাকা।

ঈদের আগের শেষ দুই কার্যদিবসেও পুঁজিবাজার ছিল ঊর্ধ্বমুখী। তাতে ডিএসই’র বাজার মূলধন বাড়ে ৩ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ ঈদের আগে ও পরে মিলে বাজার মূলধন বেড়েছে ১৩ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। এরপরও ৩ মার্চের তুলনায় এখনো ডিএসই’র বাজার মূলধন ১ লাখ ১৩ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা কম আছে। বাজার মূলধন কম হওয়ার অর্থ তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার ও ইউনিটের দাম সম্মিলিতভাবে ওই পরিমাণ কমেছে।